October 24, 2020, 9:35 pm

ব্রেকিং নিউজ :
দক্ষিণ বঙ্গের গণমানুষের মুখপত্র, চিত্রা পাড়ের তথ্যচিত্র দৈনিক আলোকিত নড়াইল’র পক্ষ থেকে শুভেচ্ছা ও স্বাগতম... -সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি সৈয়দ এস এম জিন্নাহ্ (সাংবাদিক ও গণমাধ্যম বিশ্লেষক)। ** প্রতিনিধি ও আলোকিত নড়াইল পরিবারের সদস্য সংগ্রহ চলছে.. বিস্তারিত ০১৭২৫-৫০০০০১ // ‍ send CV to.... alokitonarail@gmail.com

জারিগানের সম্রাট মোসলেম ছিলেন চেতনার কথাশিল্পী -সৈয়দ এস এম জিন্নাহ

জারিগানের সম্রাট মোসলেম ছিলেন চেতনার কথাশিল্পী -সৈয়দ এস এম জিন্নাহ

<img class=”alignnone size-full wp-image-1827″ src=”http://alokitonarail.com/wp-content/uploads/2019/10/12938939997561528706.gif” alt=”” width=”100%” height=”auto” />

আমার জন্মভূমি প্রিয় নড়াইলে আজ সোমবার শুরু হলো জারি গানের সম্রাট চারণ কবি মোসলেম উদ্দিনের ১১৫তম জন্মবার্ষিকী ও কার্তিকের পূর্ণিমা তিথিতে দু’দিনব্যাপী (২২-২৩ অক্টোবর ১৮) মোসলেম মেলা। প্রয়াত কবির উত্তরসূরি অধ্যক্ষ রওশন আলী বর্তমানে বাংলাদেশের অন্যতম জারি শিল্পী।কবি মোসলেম উদ্দিন-এর জীবদ্দশায় ১৯২৯ সাল থেকে প্রতি বছর কার্তিকের মধু পূর্ণিমা তিথিতে এই উৎসবের আয়োজন করতেন। সেই ধারাবাহিকতায় প্রতিবছরই শিল্পীর নিজ গ্রামে মেলার আয়োজন করা হয়।

বয়াতি মোসলেম উদ্দিন বাঙ্গালীয়ানার প্রতীক। তাঁর প্রতিটি গান এখনও আমাদের উজ্জীবিত করে। বাংলাদেশে মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সময় তিনি ছিলেন সহযোদ্ধা। স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় তিনি যেমন সংগঠকের কাজ করেছেন, তেমনি গান গেয়ে সাধারণ মানুষের মাঝে মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে উজ্জ্বীবিত করেছেন।

মোসলেম উদ্দিন ১৯০৪ সালে ২৪ এপ্রিল নড়াইল সদর উপজেলার চিত্রা নদীর তীরঘেষা সিঙ্গাশোলপুর ইউনিয়নের তারাপুর গ্রামে এক দরিদ্র কৃষক পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতার নাম আব্দুল ওয়াহেদ ও মাতার নাম মুসলিমা বেগম। বাল্যকাল হতেই তিনি ছিলেন সংগীতানুরাগী এবং জারি, ভাব, মুর্শিদী ও পয়ার ইত্যাদি গান গাইতেন। তৎকালীন বিখ্যাত সব গায়কের সাথে তিনি গানের পাল্লা দিয়ে খ্যাতি অর্জন করেন। তাঁর গান শুনে প্রায় সকল দর্শকই কান্নায় ভেঙ্গে পড়তেন।

জীবদ্দশায় তিনি বিচিত্র ধরনের সংগীত রচনা করেছেন যেমন-ভজন, ভাটিয়ালী, বিচ্ছেদ, ভাব,নাতে রাসুল, হামদ, দেশাত্ববোধক, বাউল, ব্যাঙ্গগীতি, প্রশ্ন ও জবাব সংক্রান্ত ধুয়াগান, জারিপালা কাহিনী, কীর্তন, অষ্টক, উপদেশমূলক ধুয়োগান, আধ্যাত্মিক গান, হালুই, খাজা বাবার শানে গান, গণসংগীতসহ বিভিন্ন ধরনের প্রায় দেড় হাজারের অধিক গান রচনা করেছেন, গেয়েছেন।

রচনার ক্ষেত্রে মোসলেমের অসামান্য অবদান হল শাহনামা কাহিনী অবলম্বনে সোহরাব-রোস্তম জারিপালা। সোহরাব রোস্তম জারিপালায় ইরানি কাহিনী বর্ণনায় তিনি দেশীয় উপকেণের উপমা ব্যবহার করে বাঙালির নৈমিত্তিক জীবনের সুখ দুঃখকে ও বাঙালির অস্তিত্বকে যথার্থ সম্মানে উপস্থাপিত করার প্রয়াস পেয়েছেন।

এছাড়া তিনি কারবালা কাহিনীভিত্তিক পালা যথাক্রমে হোসেন শহীদ, মোসলেম শহীদ, মোসলেমের পুত্রবধূ, হাসানের বিষপান, কাসেম শহীদ , হোসেন সমাধী, জয়নাল উদ্ধার, জানচুরি (সংগৃহীত) এবং আরব্য কাহিনী অবলম্বনে সুখদুঃখ ও কল্পকাহিনী ভিত্তিক কামেশ্বরী জারিপালা কাহিনী রচনা করে তা একটা বইয়ে প্রকাশ করে বাংলাদেশি জারিগানের ক্ষেত্রে এক মহান দায়িত্ব পালন করেছেন।
অত্যন্ত নির্মোহ ও অসাম্প্রদায়িক চেতেনায় উজ্জীবিত সহজ, সরল সাদামাটা ভাবে বেচে থাকায় বিশ্বাসী ছিলেন চারণ কবি মোসলেম উদ্দিন বয়াতী। পোশাকে, চালচলনে,কথা কাজে মোসলেম ছিলেন ঐ জনপদে বসবাসকারী জনগনের কাছে অনুকরনীয় আদর্শ।দারিদ্র্য পিতামাতার সংসারে বেড়ে ওঠে দারিদ্র্যের যন্ত্রনা তিনি মর্মে মর্মে উপলব্ধি করেছেন। আর সেজন্যই তিনি জীবনে অনেক গরীব দু:খী মানুষকে অন্ন, বস্ত্র ও নগদ অর্থ দ্বারা সাহায্য সহযোগিতা করেছেন। অনেককে আশ্রয় এবং অর্থদিয়ে লেখাপড়া করতে সাহায্য করেছেন। কন্যা দায়গ্রস্থ পিতাকে তার কন্যা পাত্রস্থ করার কাজে সাহায্য করেছেন। প্রতিবেশীর সাহায্যে অকৃপনভাবে এগিয়ে এসেছেন। এমনিভাবে নানাবিধ সামাজিক কাজে তিনি আমৃত্যু মানুষকে সাহায্য সহযোগিতা করেছেন। পরোপকারী,বন্ধুবৎসল,সৎ,জ্ঞানী ও সদালাপি এ মানুষটির জন্য আজও তাই মানুষ স্মৃতি রোমান্থনে আপছোস করে।
মরমী এই কবি ১৯৯০ সালের ১৯ আগস্ট অগণিত ভক্তকে কাঁদিয়ে এ পৃথিবী ছেড়ে চলে যান। কবিকে তার বাড়ির আঙিনায় অন্তিম শয্যায় শায়িত করা হয়।

লেখক : গণমাধ্যম বিশ্লেষক ও সম্পাদক দৈনিক আমাদের’৭১।

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved (2010-2020)The Daily Alokito Narail

Desing & Developed BY www.dailyamader71.Com